আউটপুট ডিভাইস কী, এবং এর প্রকারভেদ

আউটপুট ডিভাইস কী, এবং এর প্রকারভেদ

আউটপুট ডিভাইস কী তা একটি সাধারণ প্রশ্ন তাদের জন্য যারা তাদের গুরুত্বপূর্ণ কাজের জন্য কম্পিউটার  ব্যবহার করেন। আজ প্রায় প্রতিটি মানুষ তাদের কাজে  বিভিন্ন কম্পিউটার ডিভাইস ব্যবহার করে, যেমনঃ  কম্পিউটার , ল্যাপটপ এবং ট্যাবলেট। এই  ডিভাইসগুলি সঠিকভাবে কাজ করার জন্য, বিভিন্ন হার্ডওয়্যার উপাদান ব্যবহার করে, যা আউটপুট ডিভাইস।  

কম্পিউটার বর্তমান সময়ে একটি জনপ্রিয় ইলেকট্রনিক ডিভাইস। আপনি যদি একজন কম্পিউটার ব্যবহারকারী হন, তবে আপনি অবশ্যই আউটপুট ডিভাইসের নাম শুনেছেন। আউটপুট হল কম্পিউটারের সাথে সংযুক্ত বিভিন্ন ডিভাইস। আরেকটু সহজ করে বলি ,সবাই কিন্তু মনিটর, প্রিন্টার, স্পিকার দেখেছেন, এগুলো সাধারনত আউটপুট ডিভাইস ।

কিন্তু আমরা অনেকেই জানি না আউটপুট ডিভাইস কী এবং কিভাবে কাজ করে। তাই যারা জানেন না তাদের জন্য আজকের পোস্ট। চলুন জেনে আসি আউটপুট ডিভাইস কী এবং এর উদাহরণ সম্পর্কে। 

কম্পিউটারে আউটপুট ডিভাইস কি?

যে সকল ডিভাইস কম্পিউটারের বিভিন্ন  ইনপুট ডেটা প্রসেসিং হওয়ার পর, আউটপুট প্রদান করে সেই সকল ডিভাইস হল আউটপুট ডিভাইস। কম্পিউটার ব্যবহারকারীর দেওয়া নির্দেশাবলী যখন কোন কম্পিউটারকে প্রদান করে তার আউটপুট বা ফলাফল আমরা যে সকল ডিভাইসের মাধ্যমে আমরা পেয়ে থাকি তাকেই আউটপুট ডিভাইস বলে।   

উদাহরণস্বরূপ, একটি প্রিন্টার একটি আউটপুট ডিভাইস। আমরা যখন কম্পিউটারকে কিছু তথ্য প্রিন্ট করতে নির্দেশ করি, তখন সমাধান হিসেবে কম্পিউটার সেই তথ্য আউটপুট হিসেবে প্রিন্ট করে।

আউটপুট ডিভাইস হল কিছু হার্ডওয়্যার, যা ব্যবহার করে কম্পিউটার আমাদের ইনপুটের সমাধান আউটপুট হিসাবে দেখায়। আউটপুট দুটি শব্দের সমন্বয়। যথা

  •   আউট
  •   পুট 

এখানে আউট মানে বাইরে আর পুট মানে রাখা। এর মানে হল যে কম্পিউটারে প্রক্রিয়াকৃত ডেটা এই আউটপুট ডিভাইসগুলির মাধ্যমে কম্পিউটারের বাইরে রাখা হয়।

আউটপুট ডিভাইসের প্রধান কাজ কি?

ইনপুট পাওয়ার পর সিপিইউ প্রসেসিং করে। তারপর আমরা আউটপুট ডিভাইসের মাধ্যমে প্রাপ্ত ফলাফল দেখতে পাই। যখন আমরা কোনো ইনপুট দিই, সেই ইনপুটটি বাইনারি নম্বরে রূপান্তরিত হয় এবং CPU-তে যায় এবং CPU দ্বারা সেই ডেটা প্রক্রিয়াকরণের মাধ্যমে, CPU আবার বাইনারি সংখ্যায় আউটপুট দেয়। সেই বাইনারি সংখ্যাটি আমাদের বোধগম্য ভাষায় রূপান্তরিত হয় এবং আউটপুট ডিভাইসে প্রদর্শিত হয়।

আউটপুট ডিভাইস কম্পিউটারকে ব্যবহারকারীদের সাথে এবং অন্যান্য ডিভাইসের সাথে যোগাযোগ করতে দেয়। এর মধ্যে পেরিফেরালগুলি অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে, যা ইনপুট/আউটপুট উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা যেতে পারে, যেমন নেটওয়ার্ক ইন্টারফেস কার্ড (NICs), মডেম, IR পোর্ট, RFID সিস্টেম, ওয়্যারলেস নেটওয়ার্কিং ডিভাইস এবং যান্ত্রিক আউটপুট ডিভাইস, যেমন সোলেনয়েড এবং মোটর। এবং অন্যান্য ইলেক্ট্রোমেকানিক্যাল ডিভাইস।

ইনপুট ডিভাইসের মতো,কম্পিউটার অপারেশনের জন্য আউটপুট ডিভাইসের প্রয়োজন হয় না। যাইহোক, একটি আউটপুট ডিভাইস ছাড়া,কম্পিউটার যে উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হচ্ছে তা সফল নাও হতে পারে। অর্থাৎ, আপনি যদি কম্পিউটারের সাথে একটি আউটপুট ডিভাইস সংযোগ না করেন তবে আপনি যে সমস্ত কাজ করছেন তা দেখতে পারবেন না।

অর্থাৎ, আপনি যে আউটপুট ডিভাইসটির জন্য কম্পিউটার ব্যবহার করছেন তা যদি ফলাফল অর্জনের জন্য উপযোগী না হয়, তবে কাজটি করার উদ্দেশ্যটি নষ্ট হতে পারে।  

উদাহরণস্বরূপ: আপনি যদি একটি YouTube ভিডিও চালু করেন এবং তারপরে আপনার মনিটরটি বন্ধ করেন, কম্পিউটার ভিডিও চালানোর সমস্ত কাজ চালিয়ে যাবে তবে মনিটর বন্ধ থাকার কারণে আপনি ভিডিওটি দেখতে পারবেন না। স্পিকার চালু থাকলে, আপনি অডিও আউটপুট শুনতে পাবেন।

আউটপুট ডিভাইস কত প্রকার?

আউটপুট ডিভাইসের প্রকেরভেদ
আউটপুট ডিভাইসের প্রকেরভেদ

আউটপুট ডিভাইসগুলিকে মোটামুটিভাবে চারটি ভাগে ভাগ করা যায়। নীচে আউটপুট প্রকারগুলি রয়েছে:

  •   ভিজ্যুয়াল আউটপুট ডিভাইস।
  •   ডেটা আউটপুট ডিভাইস।
  •   প্রিন্টার আউটপুট ডিভাইস।
  •   শব্দ আউটপুট ডিভাইস।

ভিজ্যুয়াল আউটপুট ডিভাইস

ভিজ্যুয়াল আউটপুট ডিভাইস
ভিজ্যুয়াল ডিভাইস

এটি আউটপুট ডিভাইসের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এটি একটি ভিজ্যুয়াল ডিসপ্লে এবং ডেটার উপস্থাপনা তৈরি করে। নীচে আমি প্রধান ভিজ্যুয়াল আউটপুট ডিভাইসগুলি ব্যাখ্যা করব।

  •   মনিটর 
  •   প্রজেক্টর এবং
  •   ভিডিও কার্ড

মনিটর:

কম্পিউটারের ডিসপ্লে বা পর্দাকে মনিটর বলে। মনিটরকে কম্পিউটারের কেন্দ্রীয় অংশ হিসেবে ভাবা হয়। এটি কম্পিউটারের প্রধান আউটপুট ডিভাইস। মনিটর কম্পিউটার থেকে টেক্সট, ছবি এবং অডিও ভিডিও আকারে আসা তথ্য প্রদর্শন করে।

বিভিন্ন ধরণের মনিটর হল: ক্যাথোড রে টিউব মনিটর (সিআরটি), টিএফটি মনিটর, লিকুইড ক্রিস্টাল ডিসপ্লে মনিটর (এলসিডি), ডিএলপি মনিটর, টাচ স্ক্রিন মনিটর, লাইট এমিটিং ডায়োড মনিটর (এলইডি), প্লাজমা স্ক্রিন মনিটর এবং অর্গানিক লাইট এমিটেটিং মনিটর

প্রজেক্টর:

কম্পিউটার থেকে আউটপুট ইমেজ বা ভিডিও একটি প্রজেক্টরের মাধ্যমে একটি স্ক্রীন বা দেয়ালে প্রজেক্ট করা হয়। প্রজেক্টর মূলত একটি অপটিক্যাল ডিভাইস। এটি একটি পর্দায় একটি চিত্র প্রজেক্ট করে। প্রায় সব প্রজেক্টরই একটি ছোট স্বচ্ছ লেন্সের মাধ্যমে আলো জ্বালিয়ে একটি ছবি তৈরি করে। কিছু নতুন ধরনের প্রজেক্টর আছে যেগুলো লেজার ব্যবহার করে ছবি প্রজেক্ট করে।

বিভিন্ন ধরনের প্রজেক্টর হল: ডিজিটাল লাইট প্রসেসিং (ডিএলপি), ক্যাথোড রে টিউব (সিআরটি) এবং লিকুইড ক্রিস্টাল ডিসপ্লে (এলসিডি)।

ভিডিও কার্ড:

ভিডিও কার্ড ভিজ্যুয়াল আউটপুট ডিভাইসের একটি প্রধান অংশ। একটি ভিডিও কার্ড একটি মাদারবোর্ডের অংশ হিসাবে বিবেচিত হয়। ভিডিও কার্ড কম্পিউটারে সিনেমা বা ছবি দেখার এবং গেম খেলার অভিজ্ঞতা বাড়ায়।

ডেটা আউটপুট ডিভাইস

ডেটা ডিভাইস কম্পিউটারে সবচেয়ে জনপ্রিয় আউটপুট ডিভাইস। এই ডিভাইসটি কম্পিউটার থেকে তথ্য প্রদর্শন বা পুনরুদ্ধারের জন্য ব্যবহৃত হয়। গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম (জিপিএস) হল ডেটা আউটপুট ডিভাইসের একটি উদাহরণ।

ডেটা আউটপুট ডিভাইস (জিপিএস)
গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম (জিপিএস)

গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম (জিপিএস):

একটি ডিভাইসের অবস্থান গণনা করতে জিপিএস ব্যবহার করা হয়। জিপিএস হল একটি কৃত্রিম উপগ্রহ-ভিত্তিক যোগাযোগ ব্যবস্থা। জিপিএস পৃথিবীর যেকোনো আবহাওয়ায় স্থির বা চলমান বস্তুকে সনাক্ত করতে পারে। এর প্রধান কাজ হল অবস্থান নির্ধারণ করা। একমুখী যোগাযোগ ব্যবস্থা হল জিপিএস। জিপিএস ব্যবহারকারীরা নিজেরাই স্যাটেলাইটে কোনো সংকেত প্রেরণ করতে পারে না। তারা শুধুমাত্র স্যাটেলাইট থেকে পাঠানো সংকেত গ্রহণ করতে পারে।

প্রিন্টার আউটপুট ডিভাইস

প্রিন্টার আউটপুট ডিভাইস
প্রিন্টার আউটপুট ডিভাইস

এই আউটপুট ডিভাইসগুলি হার্ড কপি তৈরি করতে এবং যেকোনো নথি মুদ্রণ করতে ব্যবহৃত হয়। এখানে আমরা তিন ধরনের প্রিন্টার আউটপুট ডিভাইস নিয়ে আলোচনা করেছি। 

  • প্রিন্টার
  •  প্লটের
  •  ব্রেইল রিডার

প্রিন্টার:

প্রিন্টার হল সবচেয়ে সাধারণ আউটপুট ডিভাইসগুলির মধ্যে একটি। এটি কম্পিউটারের ইনপুট হিসাবে দেওয়া ডেটার আউটপুট হিসাবে ফলাফল প্রদর্শন করে। কাগজে আউটপুট এই অনুলিপি একটি হার্ড কপি বলা হয়। 

প্লটার:  

প্রিন্টারের মতো আরেকটি আউটপুট ডিভাইস হল প্লটার। এটি ডায়াগ্রাম, চার্ট, গ্রাফ ইত্যাদি প্রিন্ট করতে পারে। এমনকি 3D প্রিন্টিংও করতে পারে। এর মাধ্যমে ব্যানার ও পোস্টার ছাপানো যাবে। একটি বড় ছবি বা গ্রাফ প্রিন্ট করতে একটি প্লটার ব্যবহার করা হয়।

ব্রেইল রিডার:

একটি ব্রেইল রিডার সাধারণত একটি ইলেকট্রনিক ডিভাইস যা একজন অন্ধ ব্যক্তিকে কম্পিউটার মনিটরে প্রদর্শিত পাঠ্য পড়তে সাহায্য করে। এটি একটি ইলেক্ট্রো-মেকানিক্যাল ডিভাইস। এটির একটি সমতল পৃষ্ঠ রয়েছে যা গর্তের মধ্য দিয়ে উত্থাপিত গোল টিফিনের মাধ্যমে অক্ষর প্রদর্শন করে।

সাউন্ড আউটপুট ডিভাইস

সাউন্ড আউটপুট ডিভাইস
সাউন্ড আউটপুট ডিভাইস

সাউন্ড আউটপুট ডিভাইস শব্দটি শব্দ বাজানোর উদ্দেশ্যে কম্পিউটারের সাথে সংযুক্ত যে কোনো ডিভাইসকে বোঝায়, যেমন সঙ্গীত বা বক্তৃতা। এখানে তিনটি সাউন্ড আউটপুট ডিভাইস রয়েছে যা কম্পিউটারের একটি সাধারণ অংশ।

  •   অডিও স্পিকার
  •   হেডফোন
  •   সাউন্ড কার্ড

অডিও স্পিকার:

কম্পিউটার ব্যবহারকারীরা কম্পিউটারের শব্দ শোনার জন্য অডিও স্পিকার ব্যবহার করেন। আজকের মাল্টিমিডিয়া পিসির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশ হল স্পিকার। আজকাল বেশিরভাগ ব্যবহারকারী অডিও শোনার জন্য বাহ্যিক স্পিকার ব্যবহার করেন। এক্সটার্নাল স্পিকারের অডিও কোয়ালিটি খুবই ভালো। বাহ্যিক স্পিকার পরিবর্ধক ম্যানুয়ালি নিয়ন্ত্রণ করা যেতে পারে।

হেডফোন:

হেডফোনগুলি কানের কাছে স্থাপন করা এক জোড়া ট্রান্সডুসার। এটি মিডিয়াপ্লেয়ার বাড়ি সিলেট থেকে হারিয়ে যাওয়া শব্দ তরঙ্গগুলিকে ধারণ করে এবং তাদের শ্রবণযোগ্য শব্দ তরঙ্গে রূপান্তরিত করে। হেডফোনগুলি সাধারণত ওয়াকম্যান, সেলুলার টেলিফোন, সিডি প্লেয়ার, ভার্চুয়াল অডিও প্লেয়ার, MP3 প্লেয়ার এবং ব্যক্তিগত কম্পিউটার সিস্টেমের সাথে ব্যবহৃত হয়।

সাউন্ড কার্ড:

একটি অভ্যন্তরীণ সম্প্রসারণ কার্ড একটি সাউন্ড কার্ড। একটি সাউন্ড কার্ডের কাজ হল কম্পিউটার প্রোগ্রামগুলির নিয়ন্ত্রণে কম্পিউটার থেকে এবং কম্পিউটার থেকে অডিও সংকেতগুলির ইনপুট এবং আউটপুট প্রদান করা।

উপসংহার

সমস্ত পেরিফেরাল হার্ডওয়্যারের জন্য কম্পিউটারে বিভিন্ন ধরনের আউটপুট ডিভাইস ব্যবহার করা হয় এবং একটি কম্পিউটারের সাথে তারের বা ওয়্যারলেস নেটওয়ার্কিং দ্বারা সংযুক্ত থাকে। এই ব্লগের মাধ্যমে, আমরা আউটপুট ডিভাইস কী, কম্পিউটারে কিছু গুরুত্বপূর্ণ আউটপুট ডিভাইস এবং তাদের উদাহরণ যেমন মনিটর, প্রজেক্টর, প্রিন্টার, অডিও স্পিকার, হেডফোন ইত্যাদি নিয়ে আলোচনা করেছি। 

Leave a Reply