ইন্টারনেট কী? ইন্টারনেট আবিস্কারের সঠিক ইতিহাস

ইন্টারনেট কী? ইন্টারনেট আবিস্কারের সঠিক ইতিহাস

আসসালামুআলাইকুম।আমি Friends IT point এর পক্ষ থেকে মাসুদ রানা। আমি এই সিরিজে ইন্টারনেট কী? ইন্টারনেট আবিস্কারের সঠিক ইতিহাস সম্পর্কে কিছু ধারনা দেয়ার চেস্টা করব । সবার অবগতির জন্য, যেন কারো পরতে পরতে বিরক্তি না আসে সেই কথা মাথায় রেখে ইন্টারনেট কী? ইন্টারনেট আবিস্কারের সঠিক ইতিহাস জানার জন্য প্রসঙ্গটিকে সম্পূর্ণ তিনটি আলাদা আলাদা পোস্ট এর মাধ্যমে তুলে ধরার চেস্টা করব ইনশাআল্লাহ। চলেন আল্লাহর নামে শুরু করা যাক।

ইন্টারনেট কি? বা ইন্টারনেটের আসল কাজ কি?

ইন্টারনেট শব্দের অর্থ আন্তজাল। আন্তজাল বা ইন্টারনেট হল সারা পৃথিবী জুড়ে বিস্তৃত, পরস্পরের সাথে সংযুক্ত কতগুলো Computer Network এর সমষ্টি যেখানে আইপি (ইন্টারনেট প্রটোকল) এর মাধ্যমে ডাটা বা তথ্যের আদান-প্রদান করা। সহজ ভাষায় বললে, ইন্টারনেট হল এমন একটি কম্পিউটার নেটওয়ার্ক যেটা পুরো পৃথিবীর সকল কম্পিউটারকে একে অপরের সাথে সংযুক্ত করে।

ইন্টারনেট আবিস্কারের সঠিক ইতিহাস

আপনি যদি বিস্তৃত এবং সর্বদা পরিবর্তিত প্রযুক্তির প্রত্যাশা করেন তবে কোনো একক ব্যক্তির কাছে ইন্টারনেট আবিষ্কারের কৃতিত্ব অসম্ভব। ইন্টারনেট ছিল কয়েক ডজন বিজ্ঞানী, প্রোগ্রামার এবং ইঞ্জিনিয়ারদের কাজ যারা প্রতিটি নতুন বৈশিষ্ট্য এবং প্রযুক্তি বিকাশ করেছিল যা অবশেষে আজকে “তথ্য সুপারহাইওয়ে” হয়ে উঠেছে।
নিকোলা টেসলা 1900 এর দশকের গোড়ার দিকে “ওয়ার্ল্ড ওয়্যারলেস সিস্টেম” ধারণাটি দিয়েছিলেন এবং পল ওলেট এবং ভেনেভর বুশের মতো দূরদর্শী চিন্তাবিদ 1930 এবং 1940 এর দশকে যান্ত্রিক, অনুসন্ধানযোগ্য বই এবং মিডিয়াগুলির স্টোরেজ সিস্টেমের কল্পনা করেছিলেন।
তবুও, 1960 এর দশকের গোড়ার দিকে ইন্টারনেটের প্রথম ব্যবহার আসত না , যদি MIT’s J.C.R. এর লিক্লাইডার কম্পিউটারগুলির “ইন্টারগ্যালাকটিক নেটওয়ার্ক” ধারণাটি জনপ্রিয় করে না তুলতো। এর অল্প সময়ের মধ্যেই, কম্পিউটার বিজ্ঞানীরা “প্যাকেট স্যুইচিং” ধারণাটি বিকশিত করেছিলেন, কার্যকরভাবে বৈদ্যুতিন তথ্য প্রেরণের জন্য একটি পদ্ধতি যা পরবর্তী সময়ে ইন্টারনেটের অন্যতম প্রধান বিল্ডিং ব্লক হয়ে উঠে।
ইন্টারনেটের প্রথম কার্যক্ষম প্রোটোটাইপটি ১৯60 এর দশকের শেষদিকে ARPANET, or the Advanced Research Projects Agency Network তৈরির মাধ্যমে এসেছিল।
প্রথম কম্পিউটারটি ইউসিএলএর একটি গবেষণা ল্যাবে অবস্থিত ছিল এবং দ্বিতীয়টি স্ট্যানফোর্ডে ছিল। প্রত্যেকটি প্রায় একটি ছোট বাড়ির আকার ছিল।
ARPANET ১৯৮৩ সালের ১ জানুয়ারি টিসিপি / আইপি তৈরি করেছিলেন এবং সেখান থেকে গবেষকরা “নেটওয়ার্ক টু নেটওয়ার্ক” একত্রিত করা শুরু করে যা আজকের আধুনিক ইন্টারনেট হয়ে উঠেছে। ১৯৯0 সালে কম্পিউটার বিজ্ঞানী টিম বার্নার্স-লি ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব (WWW) উদ্ভাবন করার পরে অনলাইন বিশ্বটি আরও একটি স্বীকৃত রূপ নিয়েছিল।
বিজ্ঞানী টিম বার্নার্স-লি এর এই আবিষ্কার ওয়েব ইন্টারনেটকে জনসাধারণের মধ্যে জনপ্রিয় করতে সহায়তা করেছে এবং বিশাল পরিমাণে বিকাশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ হিসাবে কাজ করেছে।
বিশ্বে ইন্টারনেট চালু হয় কখন ১৯৬৯ সালে, এবং বাংলাদেশে ইন্টারনের চালু হয় ১৯৯৬ সালে।
ইন্টারনেটের জনক ভিনটন জি কার্ফ।
এই টপিকের মাধ্যমে আমরা ইন্টারনেট কী? ইন্টারনেট আবিস্কারের সঠিক ইতিহাস সম্পর্কে জানলাম। পরের টপিক এ আমরা যা কিছু জানব-

১। ইন্টারনেট কিভাবে কাজ করে?

২। ইন্টারনেটের মালিক কে?

৩। ইন্টারনেটের জন্য কেমন খরচ হয়?

৪। Tier 1, Tier 2 এবং Tier 3 কি?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *